1. admin@dainiksomoy24.com : admin :
নোটিশ
সাংবাদিকতার সুযোগ দিচ্ছে প্রকাশিতব্য দৈনিক সময় ২৪ । আগ্রহীরা আগামী ৩০ আগস্ট পর্যন্ত আবেদন করতে পারবেন। যোগাযোগ 01716605694
সর্বশেষ
চামড়ার মৃল্যবৃদ্ধি ও কওমি মাদ্রাসা খুলে দেওয়ার দাবি জানালেন খুলনা মহানগরীর আইম্মা পরিষদ দেশের কল্যাণে নিজেকে সঁপে দিয়েছেন বঙ্গবন্ধু কন্যা : ড. নিম চন্দ্র ভৌমিক ১০ বছরই কর দেননি ডোনাল্ড ট্রাম্প ঢাবি এলাকায় নুর সহ ড. কামাল ও আসিফ নজরুলকে অবা‌ঞ্ছিত ঘোষণা ধর্ষণ আইনের শক্ত প্রয়োগ চাই : জাতীয় জনতা ফোরাম বঙ্গবন্ধু শিক্ষানবীশ আইনজীবী পরিষদের ঢাকা জজকোর্ট শাখার কমিটি অনুমোদন অগ্রগতির পথে আলোকের রথে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পর্যটন শিল্পে বেসরকারী খাতকে উৎসাহিত করতে হবে : মোঃ মঞ্জুর হোসেন ঈসা প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বিদায়ী সাক্ষাৎ করেছেন ভারতীয় হাইকমিশনার রীভা গাঙ্গুলি দাশ অ্যাটর্নি জেনারেলের মৃত্যুতে এনডিপি ও জাতীয় মানবাধিকার সমিতির শোক ছাত্রলীগের গণধর্ষন ও নিপীড়নের মাত্রা মধ্যযুগীয় বর্বতা‌র চেয়ে ভয়াবহ : লেবার পার্টি

আগতলার মামলার আসামীদের রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি দিন : সাদেক সিদ্দিকী

  • Update Time : Sunday, September 20, 2020
  • 83 Time View

নিজস্ব প্রতিনিধি:

আগরতলা মামলা ছিল ঐতিহাসিক সত্য মন্তব্য জাতীয় পার্টি-জেপি প্রেসিডিয়াম সদস্য ও অতিরিক্ত মহাসচিব মুক্তিযোদ্ধা সাদেক সিদ্দিকী বলেন, যাঁরা এই মামলার আসামি ছিলেন, তাঁদের সাহসিকতা ও বীরত্বের জন্য রাষ্ট্রীয়ভাবে স্বীকৃতি দেওয়া উচিত।

রবিবার (২০ সেপ্টেম্বর) তোপখানার বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিল মিলনায়তনে আগরতলা মামলার অন্যতম আসামী জাতীয় বীর, মুক্তিযুদ্ধে প্রথম শহীদ লে. কমান্ডার মোয়াজ্জেম হোসেনের ৮৭তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে বাংলাদেশ জাতীয় গণতান্ত্রিক লীগ আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও মুক্তিসংগ্রামের ইতিহাসে লে. কমান্ডার মোয়াজ্জেম হোসেনসহ আগরতলা মামলার আসামীদের নাম যথাযথ মর্যদায় না থাকলে ইতিহাস অস্মপূর্ণ থেকে যাবে। দেশ-জাতি ও রাষ্ট্রের স্বার্থেই তাদের সকলকে রাষ্ট্রয়ি মর্যাদা প্রদান করা মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তির সরকারের দায়িত্ব।

সংগঠনের উপদেষ্টা ও সাবেক সচিব ইতিহাসবিদ সিরাজ উদ্দিন আহমেদের সভাপতিত্বে স্বাত বক্তব্য রাখেন সংগঠনের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা এম এ জলিল। আলোচনায় অংশগ্রহন করেন সাবেক রাষ্ট্রদূত অধ্যাপক ড. নিম চন্দ্র ভৌমিক, বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সাবেক সহ সভাপতি অ্যাডভোকেট কাজী এম. সাজাওয়ার হোসেন, বাংলাদেশ ন্যাপ মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া, ন্যাপ ভাসানী সভাপতি মোসতাক আহমেদ, জাতীয় স্বাধীনতা পার্টি চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান মিজু, পিপলস ডেমোক্রেটিক পার্টির সাধারণ সম্পাদক মো. সিদ্দিকুর রহমান, ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগ নেতা আ স ম মোস্তফা কামাল, বাংলাদেশ জাসদ মহানগর দক্ষিন যুগ্ম সম্পাদক হুমায়ূন কবির প্রমুখ। সঞ্চালনা করেন রাজনীতিক ও সংগঠক মো. শহীদুননবী ডাবলু প্রমুখ।

সাবেক রাষ্ট্রদূত ড. নিম চন্দ্র ভৌমিক বলেন, বীর সেনানীরা চলে গেলেও তাদের চেতনা ও আদর্শকে রক্ষা করতে হবে। আমাদের সবার দায়িত্ব লে. কমান্ডার মোয়াজ্জেম হোসেনসহ আগরতলা মামলার সকল আসামীদের প্রতি শ্রদ্ধা জানানো। তারাই স্বাধীন দেশ উপহার দেওয়ায় আজ আমরা সামনে এগোনোর স্বপ্ন দেখছি। তারাই ছিলেন আমাদের এগিয়ে যাওয়ার আলোকবর্তিকা।

প্রবীন আইনজীবী অ্যাডভোকেট কাজী এম. সাজাওয়ার হোসেন বলেন, বাংলাদেশের মুক্তিসংগ্রামের মহানায়ক লে কমান্ডার মোয়াজ্জেম হোসেন জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত দেশেই লড়াই-সংগ্রাম করেছেন। তাদের শ্রদ্ধা জানাতে ব্যর্থ হলে জাতি কখনো আমাদের ক্ষমা করবে না।

বাংলাদেশ ন্যাপ মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া বলেন, এ জাতির প্রজন্মের পর প্রজন্ম লে. কমান্ডার মোয়াজ্জেম হোসেনসহ আগরতলা মামলার বীর সেনানীদের প্রতি ঋণী থাকবে। যাদের ত্যাগের কারণে আমাদের স্বাধীন বাংলাদেশ আর লাল-সবুজের পতাকা তাদের স্মরণ রাখতে হবে। শুধু শোকসভা করলেই হবে না, তাদের চেতনা ধারণ করে দুর্নীতি ও দুবৃত্তায়ন মুক্ত বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠায় সফল হতে হবে। তাদের চেতনার আলোয় উদ্ভাসিত হয়ে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের ছোট-বড় সকল শক্তিকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।

স্বাগত বক্তব্যে মুক্তিযোদ্ধা এম এ জলিল বলেন, মুক্তিযোদ্ধারা জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান। লে. কমান্ডার মোয়াজ্জেম হোসেনসহ আগতলা মামলার আসামীরা আমাদের জাতীয় অহঙ্কার। পাকিস্তানি বর্বর বাহিনীকে বিতাড়িত করার মাধ্যমে ‘বাংলাদেশ’ নামক একটি স্বাধীন প্রতিষ্ঠায় তারা জাতির অনুপ্রেরনার উৎস।

সভাপতির বক্তব্যে সাবেক সচিব সিরাজউদ্দিন আহমেদ বলেন, স্বাধীন বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠায় যাদের অবদান জাতি শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করে তাদেরই অন্যতম আগড়তলা ষড়যন্ত্র মামলার অন্যতম আসামী লে. কমান্ডার মোয়াজ্জেম হোসেন। নৌবাহিনীর একজন সাহসী অফিসার, একজন শহীদ মুক্তিযোদ্ধা। মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে তাঁদের অনেকেই পাকিস্তানি বাহিনীর নির্মম হত্যাযজ্ঞের শিকার হন। বাংলাদেশ সৃষ্টির অন্যতম পথিকৃৎ ছিলেন মোয়াজ্জেম হোসেন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© স্বর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। এই ওয়েবসাইটের লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।
Customized BY NewsTheme